সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি? সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কিভাবে শিখবেন?

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি? সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কিভাবে শিখবেন?

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং হল সব আকারের ব্যবসার সম্ভাবনা এবং গ্রাহকদের কাছে পৌঁছানোর একটি শক্তিশালী উপায়। গ্রাহক সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্র্যান্ডগুলি সার্চ করে, অনুসরণ করে এবং কেনাকাটা করে, তাই আপনি যদি Facebook, Instagram এবং LinkedIn-এর মতো প্ল্যাটফর্মে না থাকেন, তাহলে আপনি পিছিয়ে পরছেন! সোশ্যাল মিডিয়াতে দুর্দান্ত বিপণন আপনার ব্যবসায় অসাধারণ সাফল্য আনতে পারে, এবং এমনকি লিড এবং বিক্রয় চালাতে পারে।  আসুন জেনেনি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি? এবং এই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কিভাবে শিখবেন

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি?

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং হল ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি ফর্ম যা আপনার মার্কেটিং এবং ব্র্যান্ডিং লক্ষ্য অর্জনের জন্য জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্কগুলির শক্তিকে কাজে লাগায়। কিন্তু এটি শুধুমাত্র ব্যবসায়িক অ্যাকাউন্ট তৈরি করা এবং আপনি যখন এটি পছন্দ করেন তখন পোস্ট করার বিষয়ে নয়। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর জন্য পরিমাপযোগ্য লক্ষ্য সহ একটি বিকশিত কৌশল প্রয়োজন এবং এতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে:

  1. আপনার প্রোফাইল বজায় রাখা এবং অপ্টিমাইজ করা.

  2. ছবি, ভিডিও, গল্প এবং লাইভ ভিডিও পোস্ট করা যা আপনার ব্র্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব করে এবং একটি প্রাসঙ্গিক দর্শকদের আকর্ষণ করে।

  3. মন্তব্য, শেয়ার, এবং লাইক প্রতিক্রিয়া করা.

  4. আপনার ব্র্যান্ডের অনুসারী বাড়ানো, গ্রাহক এবং প্রভাবশালীদের সাথে সম্পর্ক তৈরি করা।


সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর সুবিধাগুলো কি?

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এখন প্রতিটি বিপণন কৌশলের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ, এবং যারা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের সুবিধাগুলি ব্যাবহার করে না তারা একটি অসাধারণ বিপণনের সুযোগ হারাচ্ছে৷ মার্কেটিংয়ে সাফল্যের জন্য একটি মূল উপাদান এবং এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ব্যবসায়িক বৃদ্ধির সম্ভাবনা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ব্যবহার করে লাভ করা যায় এমন কিছু সুবিধা নিচে দেওয়া হল:

Audience targeting: সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি ব্যবসার জগতে সবচেয়ে বড় সুবিধাগুলির মধ্যে একটি। যখন একটি ব্যবসা এই প্ল্যাটফর্মে একটি বিজ্ঞাপন সেট আপ করে, তখন তারা সেই ব্যক্তির প্রোফাইল নির্দেশ করে। ফলস্বরূপ, ব্যবসাগুলি কার্যকরভাবে তাদের পণ্যের লক্ষ্য বাজারে পৌঁছাতে পারে।

Provides direct access to customers : এর মাধ্যমে, গ্রাহকদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ এবং তাদের কাছে কোন নতুন পণ্য, বিক্রয় বা বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করা যায়।

Promotion : ছোট বা বড় যেকোনো ব্যবসার অথবা যেকোনো ধরনের প্রোডাক্ট এর প্রমোশন করতে পারবেন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ব্যবহার করে।

Paid Advertisement: এই মাধ্যমে কম খরচে মার্কেটিং বা প্রমোশন সম্ভব। নিজেই সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে নিজের প্রোডাক্ট বা ব্যবসার ব্যাপারে মানুষদের ফ্রীতেই জানাতে পারবেন।   

Growing Brand Awarness: সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর মাধ্যমে, আপনি আপনার ব্র্যান্ডের বা ব্যবসার প্রমোশন করতে পারবেন খুব সহজেই।  

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এড কেন ব্যবহার করবেন?

সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপন সব ধরনের ব্যবসার জন্য ফলপ্রসূ হতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে বিজ্ঞাপন দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ কারণ আমরা আজকাল অর্গানিকভাবে যা পেতে পারি তার বাইরে আরও বেশি বাস্তব মূল্য রয়েছে৷ আপনি সোশ্যাল মিডিয়া বিজ্ঞাপনগুলিতে নতুন এবং বিনিয়োগের কথা বিবেচনা করছেন বা ইতিমধ্যেই Google-এর মতো অন্য কোথাও বিজ্ঞাপনগুলি চালাচ্ছেন, নিম্নলিখিত সুবিধাগুলি আপনাকে আপনার প্রচেষ্টাকে বৈচিত্র্যময় করতে এবং আপনার মিশ্রণে আরও সামাজিক মিডিয়াকে অন্তর্ভুক্ত করতে উত্সাহিত করতে পারে৷

বাংলাদেশে ব্যবহারের দিক থেকে সোশ্যাল মিডিয়ার তালিকায় ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম এবং ইউটিউব অনেকাংশে এগিয়ে আছে। আর এ সকল প্লাটফরমকে কেন্দ্র করে পণ্য বা ব্যবসা প্রচার করাট এখন অনেক লাভজনক প্রমাণিত হচ্ছে। এর ফলে, ঘরে বসে থাকা লোকেরাও আপনার প্রচার ও মার্কেটিং করা প্রোডাক্ট এবং সার্ভিস অনেক সহজেই দেখে নিতে পারে। আর এ সবকিছুই হবে ইন্টারনেট এবং সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। সুতরাং এটা পরিস্কার যে, আপনাকে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের প্রচারণার জন্য বাস্তব জীবনে কোন দোকান ভাড়া করতে হচ্ছে না এমনকি মানুষের দরজায়-দরজায়ও যেতে হচ্ছে না। সম্পূর্ণ ভার্চুয়াল বিজনেস স্ট্রাটেজিকে কাজে লাগিয়ে আপনি আপনার ব্যবসাকে শুধু দেশেই না বরং দেশের বাইরেও ছড়িয়ে দিতে পারছেন। 

এখন বিভিন্ন কোম্পানি তাদের ব্যবসার প্রসার ঘটাতে অনলাইন ভিত্তিক এই মার্কেটিং ব্যবস্থার দিকে ঝুঁকে পরছে। তারা তাদের সার্ভিসকে প্রোমোট করার লক্ষ্যে ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম কিংবা ইউটিউবের মত বড় বড় প্লাটফরমের দিক ধাবিত হচ্ছে। আর যারা প্রোডাক্টগুলো সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার করছে, তাদের জন্য সৃষ্টি হচ্ছে বিশাল এক কর্মসংস্থানের। যেহেতু কার্যকারীরা বাড়ার সাথে সাথে চাহিদাও বৃদ্ধি পাচ্ছে, তাই প্রয়োজন হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং পরিচালনা করার জন্য দক্ষ জনবলের।


সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর কাজের পরিধি কেমন?

Brand Acknowledgement: সোশ্যাল মিডিয়া একটি খোলা ময়দানের মতন এবং প্রত্যেক ব্রান্ডের একে অপরের সাথে যেখানে সংযোগ রয়েছে। যখন গ্রাহকরা একটি কোম্পানি এর লোগো এবং পণ্য চিনতে পারে, তখন এটি দ্বারা মালিকানা নির্ধারণ করা যায়।  

Increased Interaction with Community: শীর্ষস্থানীয় সোশ্যাল মিডিয়া বিপণন সংস্থাগুলিও গ্রাহকদের সাথে যোগাযোগ করে, মানবিক অনুভূতি জাগ্রত করে, সামাজিক কারণগুলিকে সমর্থন করে এবং এই প্ল্যাটফর্মগুলির মাধ্যমে একটি অনন্য সম্পর্ক স্থাপন করে এবং এতে বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়ে।

Convert potential leads into loyal customers: সোশ্যাল মিডিয়া পৃষ্ঠাগুলি স্ক্রোল করার সময় সম্ভাব্যতা সরাসরি ব্র্যান্ডের ওয়েবসাইটে পৌঁছে যায়। এটি লক্ষ্য দর্শকদের বিশ্বস্ত গ্রাহকদের রূপান্তর করতে সাহায্য করে।

Build Customer Loyalty: যখন একটি ব্র্যান্ড তার উত্সের পিছনে তার গল্প বলে, তার প্রতিদিনের কার্যকলাপ দেখায়, গ্রাহকদের সাথে সংযোগ স্থাপন করে এবং প্রশ্নের সমাধান করে। তাহলে গ্রাহকরা আপনার ব্র্যান্ড বেছে নেবে এবং অনুগত থাকবে।

Social media shows customers’ behavior: সোশ্যাল মিডিয়া একটি চমৎকার প্ল্যাটফর্ম যেখানে কোন কিছুর বিজ্ঞাপন এবং প্রচার খুব সহজে করা যায়। কেউ একটি পণ্য পছন্দ করুক বা না করুক গ্রাহকদের প্রতিক্রিয়া জানার এবং যোগাযোগ করার সুযোগ পায়। এই বিভিন্ন সাইটগুলির সাথে তৈরি করা ডেটা গ্রাহকদের আচরণ এবং প্যাটার্ন সম্পর্কেও অবগত করে।

Advertise free of Cost: অনেক সোশ্যাল মিডিয়া সাইট উদীয়মান ব্যবসাকে তাদের পণ্য বিনামূল্যে প্রচার এবং বিজ্ঞাপন দেওয়ার অনুমতি দেয়। এটি তাদের নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করতে এবং তাদের প্রতিযোগীদের মধ্যে উপস্থিতি তৈরি করতে সহায়তা করে। 

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এক্সপার্ট কিভাবে হবেন?

যে কোনও ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রথম শর্ত হল শেখার প্রতি আবেগ এবং আপনার জ্ঞান, দক্ষতা এবং ক্যারিয়ার গড়তে শ্রেষ্ঠত্বের প্রতিশ্রুতি। কিভাবে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এক্সপার্ট  হতে হয় দেখে নেওয়া যাক-

বিশ্বস্ত উৎস থেকে শিখুন: কোন কিছু শেখার সর্বোত্তম জায়গা হল সঠিক উৎস থেকে শেখা। অথরাইজড সোর্স , শীর্ষ মার্কেটিং ব্লগ এবং সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এক্সপার্টদের  কাছ থেকে শিখুন, যাদের এই বিষয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে।

অনলাইনে নিজস্ব কমিউনিটি: আপনি চাইলে নিজেকে একজন সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষজ্ঞ হতে পারেন, শুধুমাত্র আপনি যে ধারণাগুলি শিখছেন তা বাস্তবে প্রয়োগ এবং বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করুন।  

ক্লায়েন্ট অ্যাকাউন্ট পরিচালনা: আপনাকে আপনার লেখার দক্ষতা, গ্রাফিক ডিজাইন, ফটোগ্রাফি এবং ভিডিওগ্রাফির উপর কাজ করতে হবে। ক্যানভা, ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর এবং প্রিমিয়ার প্রো-এর মতো ওয়েবসাইট বা অ্যাপ ব্যাবহার করা জানতে হবে। 

দৃঢ় লক্ষ: সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার হিসাবে আপনার সামগ্রিক উদ্দেশ্য মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ। আপনার লক্ষ্য হল আপনার ক্লায়েন্টদের জন্য পরিমাপযোগ্য ফলাফল পাওয়া। কীভাবে তাদের সোশ্যাল মিডিয়ার উপস্থিতি বাড়ানো যায় এবং ফলোয়ারদের অর্থপ্রদানকারী গ্রাহক এবং উন্মাদ ভক্তদের মধ্যে রূপান্তর করা যায় তার উপর আপনার ফোকাস সবসময় থাকা উচিত

স্ব-শিক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ: আপনি কলেজে বা বিশ্ববিদ্যালয়  না গেলেও আপনার পক্ষে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ে বিশেষজ্ঞ হওয়া সম্ভব একমাত্র স্ব-শিক্ষা দ্বারা । যতক্ষণ না আপনি সঠিক তথ্য, ব্যবহারিক ধারনার প্রয়োগ,  দক্ষতা তৈরি এবং চলমান শিক্ষার উপর ফোকাস করেন, আপনি ভালো সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এক্সপার্ট হতে পারবেন

এই কোর্সটি কোথায় করবেন?

এডভান্স লেভেলের ট্রেনিং পাওয়ার জন্য বাংলাদেশে একদম নির্ভরযোগ্য একটি জায়গা Bongiyo.com বঙ্গীয় এমন ভাবে এ কোর্সটি সাজিয়েছে যাতে যে কেউ ঘরে বসেই বঙ্গীয়র ভিডিও গুলো দেখতে দেখতে বিগিনার থেকে এডভান্স লেভেলে যেতে পারেন। যে কোনো স্কিল শেখার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো সঠিক দিকনির্দেশনা।  আর সেই সঠিক দিকনির্দেশনা সহ এ কোর্সটি পাওয়া যাবে এখানেই।


0/Post a Comment/Comments

chrome-extension://oilhmgfpengfpkkliokdbjjhiikehfoo/img/semstorm-32.png