সূরা ফুরকান বাংলা উচ্চারণ সহ অর্থ | সূরা ফুরকানের ৭৪ নং আয়াত বাংলা উচ্চারণ সহ অর্থ | সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ এর ফজিলত

 
সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪, সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪ বাংলা উচ্চারণ, সূরা ফুরকান, সূরা ফুরকান বাংলা অনুবাদ, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ এর ফজিলত, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ বাংলা উচ্চারণ, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪।


আসসালামুআলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহ। আমার দ্বীনী ভাই ও বোনেরা আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও আপনাদের দোয়া ও আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। প্রিয়  ভাই ও বোনেরা আজ আমি আপনাদের মাঝে নিয়ে আসলাম:- সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪, সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪ বাংলা উচ্চারণ, সূরা ফুরকান, সূরা ফুরকান বাংলা অনুবাদ, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ এর ফজিলত, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ বাংলা উচ্চারণ, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪।তো দেরি না করে আসুন আমরা পড়া শুরু করি।

সূরা ফুরকান | সূরা ফুরকান বাংলা অনুবাদ 


بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


تَبَارَكَ ٱلَّذِى نَزَّلَ ٱلۡفُرۡقَانَ عَلَىٰ عَبۡدِهِۦ لِيَكُونَ لِلۡعَـٰلَمِينَ نَذِيرًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১) তাবা-রকাল্লাযী নায্যালাল্ র্ফুক্ব-না ‘আলা-আব্দ্বিহী লিইয়াকূনা লিল্‘আ-লামীনা নাযীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১) তিনি বরকতময় যিনি তাঁর বান্দার উপর ফুরকান নাযিল করেছেন যেন সে জগতবাসীর জন্য সতর্ককারী হতে পারে।


ٱلَّذِى لَهُ ۥ مُلۡكُ ٱلسَّمَـٰوَٲتِ وَٱلۡأَرۡضِ وَلَمۡ يَتَّخِذۡ وَلَدً۬ا وَلَمۡ يَكُن لَّهُ ۥ شَرِيكٌ۬ فِى ٱلۡمُلۡكِ وَخَلَقَ ڪُلَّ شَىۡءٍ۬ فَقَدَّرَهُ ۥ تَقۡدِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২) নিল্লাযী লাহূ মুল্কুস্ সামা-ওয়া-তি অল্র্আদ্বি অলাম্ ইয়াত্তাখিয্ অলাদাঁও অলাম্ ইয়াকুল্লাহূ শারীকুন্ ফিল্ মুল্কি অ খলাক্ব কুল্লা শাইয়িন্ ফাক্বদ্দারহূ তাক্বদীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২) যার অধিকারে রয়েছে আসমান ও যমীনের মালিকানা; আর তিনি কোন সন্তান গ্রহণ করেননি এবং সার্বভৌমত্বে তাঁর কোন শরীক নেই। তিনি সব কিছু সৃষ্টি করেছেন। অতঃপর তা নিপুণভাবে নিরূপণ করেছেন।


وَٱتَّخَذُواْ مِن دُونِهِۦۤ ءَالِهَةً۬ لَّا يَخۡلُقُونَ شَيۡـًٔ۬ا وَهُمۡ يُخۡلَقُونَ وَلَا يَمۡلِكُونَ لِأَنفُسِهِمۡ ضَرًّ۬ا وَلَا نَفۡعً۬ا وَلَا يَمۡلِكُونَ مَوۡتً۬ا وَلَا حَيٰوةً وَلَا نُشُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩) অত্তাখযূ মিন্ দূনিহী য় আ-লিহাতা ল্লা-ইয়াখ্লুকুনা শাইয়াঁও অহুম্ ইয়ুখ্লাকুনা অলা-ইয়াম্লিকূনা লিআন্ফুসিহিম্ দ্বোর্য়ারঁও অলা-নাফ্আঁও অলা- ইয়াম্লিকূনা মাওতাঁও অলা-হাইয়া-তাঁও অলা-নুশূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩) আর তারা আল্লাহ ছাড়া অনেক ইলাহ গ্রহণ করেছে, যারা কিছুই সৃষ্টি করতে পারে না, বরং তাদেরকেই সৃষ্টি করা হয়েছে; তারা নিজদের কোন কল্যাণ ও অকল্যাণ করার ক্ষমতা রাখে না এবং মৃত্যু, জীবন ও পুনরুত্থান করতেও সক্ষম হয় না।


وَقَالَ ٱلَّذِينَ كَفَرُوٓاْ إِنۡ هَـٰذَآ إِلَّآ إِفۡكٌ ٱفۡتَرَٮٰهُ وَأَعَانَهُ ۥ عَلَيۡهِ قَوۡمٌ ءَاخَرُونَ‌ۖ فَقَدۡ جَآءُو ظُلۡمً۬ا وَزُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪) অক্ব-লাল্ লাযীনা কাফারূ য় ইন্হা-যা য় ইল্লা য় ইফ্কুনিফ্ তার-হু অ আ‘আ-নাহূ ‘আলাইহি ক্বওমুন্ আ-খারূনা ফাক্বদ্ জা-য়ূ জুল্মাঁও অযূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪) কাফিররা বলে ‘এটি তো জঘন্য মিথ্যা যা সে রটনা করেছে আর অন্য এক দল তাকে সাহায্য করেছে।’ এভাবে তারা যুলম ও মিথ্যা নিয়ে এসেছে।


وَقَالُوٓاْ أَسَـٰطِيرُ ٱلۡأَوَّلِينَ ٱڪۡتَتَبَهَا فَهِىَ تُمۡلَىٰ عَلَيۡهِ بُڪۡرَةً۬ وَأَصِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫) অ ক্ব-লূ য় আসা-ত্বীরুল্ আউয়্যালীনাক্ তাতাবাহা-ফাহিয়া তুম্লা-‘আলাইহি বুক্রতাঁও অআছীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫) তারা বলে, ‘এটি প্রাচীনকালের উপকথা যা সে লিখিয়ে নিয়েছে; এগুলো সকাল-সন্ধ্যায় তার কাছে পাঠ করা হয়।


قُلۡ أَنزَلَهُ ٱلَّذِى يَعۡلَمُ ٱلسِّرَّ فِى ٱلسَّمَـٰوَٲتِ وَٱلۡأَرۡضِ‌ۚ إِنَّهُ ۥ ڪَانَ غَفُورً۬ا رَّحِيمً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬) কুল্ আন্যালাহু ল্লাযী ইয়া’লামুস্ র্সির ফিস্ সামা-ওয়া-তি অল্ র্আদ্ব্; ইন্নাহূ কা-না গফূর্রা রহীমা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬) বল, ‘যিনি আসমান ও যমীনের রহস্য জানেন তিনি এটি নাযিল করেছেন; নিশ্চয় তিনি অতীব ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’


وَقَالُواْ مَالِ هَـٰذَا ٱلرَّسُولِ يَأۡڪُلُ ٱلطَّعَامَ وَيَمۡشِى فِى ٱلۡأَسۡوَاقِ‌ۙ لَوۡلَآ أُنزِلَ إِلَيۡهِ مَلَكٌ۬ فَيَكُونَ مَعَهُ ۥ نَذِيرًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭) অ ক্ব-লূ মা-লি হা-র্যা রসূলি ইয়াকুলুত্ব্ ত্বোয়া‘আ-মা অইয়াম্শী ফিল্ আস্ওয়া-ক্ব; লাওলা য় উন্যিলা ইলাইহি মালাকুন্ ফাইয়াকূনা মা‘আহূ নাযীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭) আর তারা বলে, ‘এ রাসূলের কী হল, সে আহার করে এবং হাটে-বাজারে চলাফেরা করে; তার কাছে একজন ফেরেশতা পাঠানো হল না কেন, যে তাঁর সাথে সতর্ককারী হত’?


أَوۡ يُلۡقَىٰٓ إِلَيۡهِ ڪَنزٌ أَوۡ تَكُونُ لَهُ ۥ جَنَّةٌ۬ يَأۡڪُلُ مِنۡهَا‌ۚ وَقَالَ ٱلظَّـٰلِمُونَ إِن تَتَّبِعُونَ إِلَّا رَجُلاً۬ مَّسۡحُورًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৮) আও ইয়ুল্ক্ব য় ইলাইহি কান্যুন্ আও তাকূনু লাহূ জ্বান্নাতুঁই ইয়াকুলূ মিন্হা-; অক্ব-লাজ্ জোয়া-লিমূনা ইন্ তাত্তাবি‘ঊ না ইল্লা-রাজুলাম্ মাস্হূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৮) অথবা তাকে ধনভাণ্ডার ঢেলে দেয়া হয় না কেন অথবা তার জন্য একটি বাগান হয় না কেন যা থেকে সে খেতে পারে?’ যালিমরা বলে, ‘তোমরা শুধু এক যাদুগ্রস্ত লোকের অনুসরণ করছ’।


ٱنظُرۡ ڪَيۡفَ ضَرَبُواْ لَكَ ٱلۡأَمۡثَـٰلَ فَضَلُّواْ فَلَا يَسۡتَطِيعُونَ سَبِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৯) উর্ন্জু কাইফা দ্বোয়ারাবূ লাকাল্ আম্ছা-লা ফাদ্বোয়াল্ল ূ ফালা-ইয়াস্তাত্বী‘ঊনা সাবীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৯) দেখ, তোমার জন্য তারা কেমন উপমা পেশ করে; ফলে তারা পথভ্রষ্ট হয়েছে, সুতরাং তারা কোন পথ পেতে সক্ষম হয় না।


تَبَارَكَ ٱلَّذِىٓ إِن شَآءَ جَعَلَ لَكَ خَيۡرً۬ا مِّن ذَٲلِكَ جَنَّـٰتٍ۬ تَجۡرِى مِن تَحۡتِهَا ٱلۡأَنۡهَـٰرُ وَيَجۡعَل لَّكَ قُصُورَۢا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১০) তাবা-রকাল্লাযী¡ য় ইন্ শা-য়া জ্বা‘আলা লাকা খইরম্ মিন্ যা-লিকা জ্বান্না-তিন্ তাজরী মিন্ তাহ্তিহাল্ আন্হা-রু অইয়াজ‘আল্ লাকা কুছূরা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১০) তিনি বরকতময়, যিনি ইচ্ছা করলে তোমার জন্য করে দিতে পারেন তার চেয়ে উত্তম বস্তু অনেক বাগান, যার পাদদেশে নদীসমূহ প্রবাহিত হয় এবং তিনি তোমাকে প্রাসাদসমূহ দিতে পারেন।


بَلۡ كَذَّبُواْ بِٱلسَّاعَةِ‌ۖ وَأَعۡتَدۡنَا لِمَن ڪَذَّبَ بِٱلسَّاعَةِ سَعِيرًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১১) বাল্ কায্যাবূ বিস্সা ‘আতি অ আ’তাদ্না-লিমান্ কায্যাবা বিস্সা-‘আতি সা‘ঈর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১১) বরং তারা কিয়ামতকে অস্বীকার করেছে আর কিয়ামতকে যে অস্বীকার করে তার জন্য আমি প্রস্তুত রেখেছি জ্বলন্ত আগুন।


إِذَا رَأَتۡهُم مِّن مَّكَانِۭ بَعِيدٍ۬ سَمِعُواْ لَهَا تَغَيُّظً۬ا وَزَفِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১২) ইযা-রায়াত্হুম্ মিম্ মাকা-নিম্ বা‘ঈ দিন্ সামি‘ঊ লাহা-তাগাইয়্যুজোয়াঁও অযাফীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১২) দূর হতে আগুন যখন তাদেরকে দেখবে তখন তারা তার ক্রুদ্ধ গর্জন ও প্রচণ্ড চিৎকার শুনতে পাবে।


وَإِذَآ أُلۡقُواْ مِنۡہَا مَكَانً۬ا ضَيِّقً۬ا مُّقَرَّنِينَ دَعَوۡاْ هُنَالِكَ ثُبُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১৩) অইযা য় উল্ক্ব মিন্হা- মাকা-নান্ দ্বোয়াইয়্যিক্বাম্ মুর্ক্বরনীনা দা‘আও হুনা-লিকা ছুবূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১৩) আর যখন তাদেরকে গলায় হাত পেঁচিয়ে জাহান্নামের সংকীর্ণ স্থানে নিক্ষেপ করা হবে, সেখানে তারা নিজদের ধ্বংস আহবান করবে।


لَّا تَدۡعُواْ ٱلۡيَوۡمَ ثُبُورً۬ا وَٲحِدً۬ا وَٱدۡعُواْ ثُبُورً۬ا ڪَثِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১৪) লা-তাদ্‘উল্ ইয়াওমা ছুবূরাঁও ওয়া-হিদাঁও অদ্‘ঊ ছুবূরান্ কাছীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১৪) ‘একবার ধ্বংসকে ডেকো না; বরং অনেকবার ধ্বংসকে ডাকো।’


قُلۡ أَذَٲلِكَ خَيۡرٌ أَمۡ جَنَّةُ ٱلۡخُلۡدِ ٱلَّتِى وُعِدَ ٱلۡمُتَّقُونَ‌ۚ كَانَتۡ لَهُمۡ جَزَآءً۬ وَمَصِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১৫) কুল্ আযা-লিকা খইরুন্ আম্ জ্বান্নাতুল্ খুল্ দিল্লাতী উ‘ইদাল্ মুত্তাকুন্; কা-নাত্ লাহুম্ জ্বাযা-য়াঁও অমাছীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১৫) বল, ‘সেটা উত্তম না স্থায়ী জান্নাত, মুত্তাকীদেরকে যার ওয়াদা দেয়া হয়েছে, তা হবে তাদের পুরস্কার ও প্রতাবর্তনস্থল।


لَّهُمۡ فِيهَا مَا يَشَآءُونَ خَـٰلِدِينَ‌ۚ كَانَ عَلَىٰ رَبِّكَ وَعۡدً۬ا مَّسۡـُٔولاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১৬) লাহুম্ ফীহা-মা- ইয়াশা-য়ূনা খ-লিদীন্; কা-না ‘আলা-রব্বিকা অ’দাম্ মাস্য়ূলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১৬) সেখানে তারা যা চাইবে তা-ই তাদের জন্য থাকবে স্থায়ীভাবে; এটি তোমার রবের ওয়াদা,


وَيَوۡمَ يَحۡشُرُهُمۡ وَمَا يَعۡبُدُونَ مِن دُونِ ٱللَّهِ فَيَقُولُ ءَأَنتُمۡ أَضۡلَلۡتُمۡ عِبَادِى هَـٰٓؤُلَآءِ أَمۡ هُمۡ ضَلُّواْ ٱلسَّبِيلَ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১৭) অ ইয়াওমা ইয়াহ্শুরুহুম্ অমা-ইয়া’বুদূনা মিন্ দূ নিল্লা-হি ফাইয়াকুলূ আআন্তুম্ আদ্ব্লাল্তুম্ ‘ইবা-দী হা য় উলা-য়ি আম্হুম্ দ্বোয়াল্লুস্ সাবীল্।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১৭) আর সেদিন তাদেরকে এবং আল্লাহ ছাড়া যা কিছুর উপাসনা তারা করত সবাইকে তিনি একত্র করবেন, তারপর বলবেন, ‘তোমরা কি আমার এই বান্দাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছ’ না তারা নিজেরাই পথভ্রষ্ট হয়েছে?’


قَالُواْ سُبۡحَـٰنَكَ مَا كَانَ يَنۢبَغِى لَنَآ أَن نَّتَّخِذَ مِن دُونِكَ مِنۡ أَوۡلِيَآءَ وَلَـٰكِن مَّتَّعۡتَهُمۡ وَءَابَآءَهُمۡ حَتَّىٰ نَسُواْ ٱلذِّڪۡرَ وَكَانُواْ قَوۡمَۢا بُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১৮) ক্ব-লূ সুব্হা-নাকা মা-কা-না ইয়াম্বাগী লানা য় আন্ নাত্তাখিযা মিন্ দূনিকা মিন্ আউলিয়া-য়া অলা-কিম্ মাত্তা’তাহুম্ অআ-বা-য়াহুম্ হাত্তা-নাছুয্ যিক্র অকা-নূ কাওমাম্ বূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১৮) তারা বলবে, ‘আপনি পবিত্র মহান! আপনি ছাড়া অন্য কাউকে অভিভাবক হিসেবে গ্রহণ করা আমাদের উচিত নয়, বরং আপনি তাদেরকে ও তাদের পিতৃপুরুষদেরকে ভোগসম্ভার দিয়েছেন, অবশেষে আপনার স্মরণকে তারা ভুলে গিয়েছিল এবং ধ্বংসপ্রাপ্ত কওমে পরিণত হয়েছিল।’


فَقَدۡ ڪَذَّبُوكُم بِمَا تَقُولُونَ فَمَا تَسۡتَطِيعُونَ صَرۡفً۬ا وَلَا نَصۡرً۬ا‌ۚ وَمَن يَظۡلِم مِّنڪُمۡ نُذِقۡهُ عَذَابً۬ا ڪَبِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.১৯) ফাক্বদ্ কায্যাবূকুম্ বিমা-তাকু লূনা ফামা-তাস্তাত্বী ‘ঊনা ছোর্য়াফাঁও অলা-নাছ্রন্, অমাইঁ ইয়াজ্লিম্ মিন্কুম্ নুযিক্বহু ‘আয্-বান্ কাবীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.১৯) অতঃপর তোমরা যা বল তারা তা মিথ্যা বলেছে। অতএব তোমরা আযাব ফেরাতে পারবে না এবং কোন সাহায্যও করতে পারবে না। আর তোমাদের মধ্যে যে যুলম করবে তাকে আমি মহাআযাব আস্বাদন করাব।’


وَمَآ أَرۡسَلۡنَا قَبۡلَكَ مِنَ ٱلۡمُرۡسَلِينَ إِلَّآ إِنَّهُمۡ لَيَأۡكُلُونَ ٱلطَّعَامَ وَيَمۡشُونَ فِى ٱلۡأَسۡوَاقِ‌ۗ وَجَعَلۡنَا بَعۡضَڪُمۡ لِبَعۡضٍ۬ فِتۡنَةً أَتَصۡبِرُونَ‌ۗ وَڪَانَ رَبُّكَ بَصِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২০) অমা য় র্আসাল্না- ক্বব্লাকা মিনাল্ র্মুসালীনা ইল্লা য় ইন্নাহুম্ লাইয়াকুলূনা ত্তোয়া‘আ মা-অ ইয়াম্শূনা ফিল্ আস্ওয়াক্বি অজ্বা‘আল্না-বা’দ্বোয়াকুম্ লিবা’দ্বিন্ ফিত্নাহ্; আতাছ্বিরূনা অকা-না রব্বুকা বাছীরা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২০) আর তোমার পূর্বে যত নবী আমি পাঠিয়েছি, তারা সবাই আহার করত এবং হাট-বাজারে চলাফেরা করত। আমি তোমাদের একজনকে অপরজনের জন্য পরীক্ষাস্বরূপ করেছি। তোমরা কি ধৈর্যধারণ করবে? আর তোমার রব সর্বদ্রষ্টা।


۞ وَقَالَ ٱلَّذِينَ لَا يَرۡجُونَ لِقَآءَنَا لَوۡلَآ أُنزِلَ عَلَيۡنَا ٱلۡمَلَـٰٓٮِٕكَةُ أَوۡ نَرَىٰ رَبَّنَا‌ۗ لَقَدِ ٱسۡتَكۡبَرُواْ فِىٓ أَنفُسِهِمۡ وَعَتَوۡ عُتُوًّ۬ا كَبِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২১) অক্ব-লাল্ লাযীনা লা-ইর্য়াজুনা লিক্ব-য়ানা লাওলা য় উন্যিলা ‘আলাইনাল্ মালা-য়িকাতু আও নার-রব্বানা-; লাক্বাদিস্ তাক্বারূ ফী য় আন্ফুসিহিম্ অ ‘আতাও উ’তুওয়্যান্ কাবীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২১) আর যারা আমার সাক্ষাৎ প্রত্যাশা করে না, তারা বলে, ‘আমাদের নিকট ফেরেশতা নাযিল হয় না কেন? অথবা আমরা আমাদের রবকে দেখতে পাই না কেন’? অবশ্যই তারা তো তাদের অন্তরে অহঙ্কার পোষণ করেছে এবং তারা গুরুতর সীমালংঘন করেছে।


يَوۡمَ يَرَوۡنَ ٱلۡمَلَـٰٓٮِٕكَةَ لَا بُشۡرَىٰ يَوۡمَٮِٕذٍ۬ لِّلۡمُجۡرِمِينَ وَيَقُولُونَ حِجۡرً۬ا مَّحۡجُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২২) ইয়াওমা ইয়ারাওনাল্ মালা-য়িকাতা লা-বুশ্র ইয়াওমায়িযিল্লিল্ মুজরিমীনা অইয়াকুলূনা হিজ্বরাম্ মাহ্জুর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২২) যেদিন তারা ফেরেশতাদের দেখবে, সেদিন অপরাধীদের জন্য কোন সুসংবাদ থাকবে না। আর তারা বলবে, ‘হায় কোন বাধা যদি তা আটকে রাখত’


وَقَدِمۡنَآ إِلَىٰ مَا عَمِلُواْ مِنۡ عَمَلٍ۬ فَجَعَلۡنَـٰهُ هَبَآءً۬ مَّنثُورًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২৩) অ ক্বদিম্না য় ইলা-মা- ‘আমিলূ মিন্ ‘আমালিন্ ফাজ্বা‘আল্না-হু হাবা-য়াম্ মান্ছূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২৩) আর তারা যে কাজ করেছে আমি সেদিকে অগ্রসর হব। অতঃপর তাকে বিক্ষিপ্ত ধূলিকণায় পরিণত করে দেব।


أَصۡحَـٰبُ ٱلۡجَنَّةِ يَوۡمَٮِٕذٍ خَيۡرٌ۬ مُّسۡتَقَرًّ۬ا وَأَحۡسَنُ مَقِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২৪) আছ্হা-বুল্ জ্বান্নাতি ইয়াওমায়িযিন্ খইরুম্ মুস্তার্ক্বরঁও অ আহ্সানু মাক্বীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২৪) সেদিন জান্নাতবাসীরা বাসস্থান হিসেবে উত্তম এবং বিশ্রামস্থল হিসেবে উৎকৃষ্ট অবস্থায় থাকবে।


وَيَوۡمَ تَشَقَّقُ ٱلسَّمَآءُ بِٱلۡغَمَـٰمِ وَنُزِّلَ ٱلۡمَلَـٰٓٮِٕكَةُ تَنزِيلاً 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২৫) অইয়াওমা তাশাক্বক্বকুস্ সামা-য়ু বিল্গমা-মি অনুয্যিলাল্ মালা-য়িকাতু তান্যীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২৫) আর সেদিন মেঘমালা দ্বারা আকাশ বিদীর্ণ হবে এবং ফেরেশতাদেরকে দলে দলে অবতরণ করানো হবে।


ٱلۡمُلۡكُ يَوۡمَٮِٕذٍ ٱلۡحَقُّ لِلرَّحۡمَـٰنِ‌ۚ وَڪَانَ يَوۡمًا عَلَى ٱلۡكَـٰفِرِينَ عَسِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২৬) আল্মুল্কু ইয়াওমায়িযিনিল্ হাক্বকু র্লিরহ্মা-ন্; অকা-না ইয়াওমান্ ‘আলাল্ কা-ফিরীনা ‘অসীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২৬) সেদিন প্রকৃত সার্বভৌমত্ব হবে পরম করুণাময়ের। আর সে দিনটি কাফিরদের জন্য বড়ই কঠিন।


وَيَوۡمَ يَعَضُّ ٱلظَّالِمُ عَلَىٰ يَدَيۡهِ يَقُولُ يَـٰلَيۡتَنِى ٱتَّخَذۡتُ مَعَ ٱلرَّسُولِ سَبِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২৭) অইয়াওমা ইয়া‘আদ্দুজ্ জোয়া-লিমু ‘আলা-ইয়াদাইহি ইয়াকুলু ইয়া-লাইতানিত্ তাখায্তু মা‘র্আ রাসূলি সাবীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২৭) আর সেদিন যালিম নিজের হাত দু’টো কামড়িয়ে বলবে, ‘হায়, আমি যদি রাসূলের সাথে কোন পথ অবলম্বন করতাম’!


يَـٰوَيۡلَتَىٰ لَيۡتَنِى لَمۡ أَتَّخِذۡ فُلَانًا خَلِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২৮) ইয়া-অইলাতা- লাইতানী লাম্ আত্তাখিয্ ফুলা-নান্ খালীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২৮) ‘হায় আমার দুর্ভোগ, আমি যদি অমুককে বন্ধুরূপে গ্রহণ না করতাম’।


لَّقَدۡ أَضَلَّنِى عَنِ ٱلذِّڪۡرِ بَعۡدَ إِذۡ جَآءَنِى‌ۗ وَڪَانَ ٱلشَّيۡطَـٰنُ لِلۡإِنسَـٰنِ خَذُولاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.২৯) লাক্বদ্ আদ্বোয়াল্লানী ‘আনিয্ যিক্রি বা’দা ইয্ জ্বা-য়ানী অকা-নাশ্ শাইত্বোয়া-নু লিল্ইন্সা-নি খযূলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.২৯) ‘অবশ্যই সে তো আমাকে উপদেশবাণী থেকে বিভ্রান্ত করেছিল, আমার কাছে তা আসার পর। আর শয়তান তো মানুষের জন্য চরম প্রতারক’।


وَقَالَ ٱلرَّسُولُ يَـٰرَبِّ إِنَّ قَوۡمِى ٱتَّخَذُواْ هَـٰذَا ٱلۡقُرۡءَانَ مَهۡجُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩০) অক্ব-র্লা রসূলু ইয়া-রব্বি ইন্না ক্বওমিত্তাখযূ হা-যাল্ ক্বর্আ-না মাহ্জু র-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩০) আর রাসূল বলবে, ‘হে আমার রব, নিশ্চয় আমার কওম এ কুরআনকে পরিত্যাজ্য গণ্য করেছে।

وَكَذَٲلِكَ جَعَلۡنَا لِكُلِّ نَبِىٍّ عَدُوًّ۬ا مِّنَ ٱلۡمُجۡرِمِينَ‌ۗ وَكَفَىٰ بِرَبِّكَ هَادِيً۬ا وَنَصِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩১) অকাযা-লিকা জ্বা‘আল্না-লিকুল্লি নাবিয়্যিন্ ‘আদুওয়্যাম্ মিনাল্ মুজরিমীন্; অ কাফা -বিরব্বিকা হা- দিয়াও অনাছীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩১) আর এভাবেই আমি প্রত্যেক নবীর জন্য অপরাধীদের মধ্য থেকে শত্র“ বানিয়েছি। আর পথপ্রদর্শক ও সাহায্যকারী হিসেবে তোমার রবই যথেষ্ট।


وَقَالَ ٱلَّذِينَ كَفَرُواْ لَوۡلَا نُزِّلَ عَلَيۡهِ ٱلۡقُرۡءَانُ جُمۡلَةً۬ وَٲحِدَةً۬‌ۚ ڪَذَٲلِكَ لِنُثَبِّتَ بِهِۦ فُؤَادَكَ‌ۖ وَرَتَّلۡنَـٰهُ تَرۡتِيلاً۬

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩২) অক্ব-লাল্লাযীনা কাফারূ লাওলা নুয্যিলা ‘আলাইহিল্ ক্বর্ ুআ-নু জুম্লাতাওঁ ওয়া-হিদাতান্ কাযা-লিকা লিনুছাব্বিতা বিহী ফুওয়া-দাকা অরত্তাল্না-হু র্তাতীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩২) আর কাফিররা বলে, ‘তার উপর পুরো কুরআন একসাথে কেন নাযিল করা হল না? এটা এজন্য যে, আমি এর মাধ্যমে তোমার হৃদয়কে সুদৃঢ় করব। আর আমি তা আবৃত্তি করেছি ধীরে ধীরে।


وَلَا يَأۡتُونَكَ بِمَثَلٍ إِلَّا جِئۡنَـٰكَ بِٱلۡحَقِّ وَأَحۡسَنَ تَفۡسِيرًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩৩) অলা- ইয়াতূনাকা-বিমাছালিন্ ইল্লাজ্বিনা-কা বিল্হাক্বক্বি অআহ্সানা তাফসীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩৩) আর তারা তোমার কাছে যে কোন বিষয়ই নিয়ে আসুক না কেন, আমি এর সঠিক সমাধান ও সুন্দর ব্যাখ্যা তোমার কাছে নিয়ে এসেছি।

ٱلَّذِينَ يُحۡشَرُونَ عَلَىٰ وُجُوهِهِمۡ إِلَىٰ جَهَنَّمَ أُوْلَـٰٓٮِٕكَ شَرٌّ۬ مَّكَانً۬ا وَأَضَلُّ سَبِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩৪) আল্লাযীনা ইয়ুহ্শারূনা ‘আলা-উজুহিহিম্ ইলা-জ্বাহান্নামা উলা-য়িকা র্শারুম্ মাকানাঁও অ আদ্বোয়াল্লু সাবীলা -।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩৪) যাদেরকে মুখের উপর ভর দেয়া অবস্থায় জাহান্নামের দিকে একত্র করা হবে। এরা মর্যাদায় অধিক নিকৃষ্ট এবং পথের দিক থেকে সবচেয়ে বেশী পথভ্রষ্ট।


وَلَقَدۡ ءَاتَيۡنَا مُوسَى ٱلۡڪِتَـٰبَ وَجَعَلۡنَا مَعَهُ ۥۤ أَخَاهُ هَـٰرُونَ وَزِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩৫) অ লাক্বদ্ আ-তাইনা-মূসাল্ কিতা-বা অ জ্বা‘আল্না-মা‘আহূ য় আখ-হু হারূনা অযীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩৫) আর আমি তো মূসাকে কিতাব দিয়েছিলাম এবং তার সাথে তার ভাই হারূনকে সাহায্যকারী বানিয়েছিলাম।


فَقُلۡنَا ٱذۡهَبَآ إِلَى ٱلۡقَوۡمِ ٱلَّذِينَ كَذَّبُواْ بِـَٔايَـٰتِنَا فَدَمَّرۡنَـٰهُمۡ تَدۡمِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩৬) ফাকুল্নায্ হাবা য় ইলাল্ ক্বওমিল্ লাযীনা কায্যাবূ বিআ-ইয়া-তিনা-; ফাদার্ম্মানা-হুম্ তাদ্মীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩৬) অতঃপর আমি বলেছিলাম, তোমরা দু’জন সেই কওমের নিকট যাও, যারা আমার আয়াতসমূহকে অস্বীকার করেছে। অতঃপর আমি তাদেরকে সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত করে দিয়েছিলাম।


وَقَوۡمَ نُوحٍ۬ لَّمَّا ڪَذَّبُواْ ٱلرُّسُلَ أَغۡرَقۡنَـٰهُمۡ وَجَعَلۡنَـٰهُمۡ لِلنَّاسِ ءَايَةً۬‌ۖ وَأَعۡتَدۡنَا لِلظَّـٰلِمِينَ عَذَابًا أَلِيمً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩৭) অক্বওমা নূহিল্লাম্মা-কায্যার্বু রুসুলা আগ্রাক্বনা-হুম্ অজ্বা‘আল্না-হুম্ লিন্না-সি আ-ইয়াহ্; অ আ’তাদ্না-লিজ্জোয়া-লিমীনা ‘আযা-বান্ আলীমা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩৭) আর নূহের কওমকে, যখন তারা রাসূলদেরকে অস্বীকার করল, আমি তাদেরকে ডুবিয়ে দিলাম এবং তাদেরকে মানুষের জন্য নিদর্শন বানিয়ে দিলাম। আর আমি যালিমদের জন্য প্রস্তুত করে রেখেছি যন্ত্রণাদায়ক আযাব।


وَعَادً۬ا وَثَمُودَاْ وَأَصۡحَـٰبَ ٱلرَّسِّ وَقُرُونَۢا بَيۡنَ ذَٲلِكَ كَثِيرً۬ا    

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩৮) অআ’দাঁও অছামূদা অআছ্হা- র্বা রাস্সি অকুরূনাম্ বাইনা যা-লিকা কাছীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩৮) আর ধ্বংস ‘আদ, সামূদ, ‘রাস’ এর অধিবাসী এবং তাদের মধ্যবর্তী কালের বহু প্রজন্মের উপরও।


وَڪُلاًّ۬ ضَرَبۡنَا لَهُ ٱلۡأَمۡثَـٰلَ‌ۖ وَڪُلاًّ۬ تَبَّرۡنَا تَتۡبِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৩৯) অকুল্লান্ দ্বোয়ারাব্না-লাহুল্ আম্ছা-লা অকুল্লান্ তার্ব্বানা তাত্বীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৩৯) আর আমি তাদের প্রত্যেকের জন্য দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করেছি এবং তাদের প্রত্যেককেই আমি সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করে দিয়েছি।


وَلَقَدۡ أَتَوۡاْ عَلَى ٱلۡقَرۡيَةِ ٱلَّتِىٓ أُمۡطِرَتۡ مَطَرَ ٱلسَّوۡءِ‌ۚ أَفَلَمۡ يَڪُونُواْ يَرَوۡنَهَا‌ۚ بَلۡ ڪَانُواْ لَا يَرۡجُونَ نُشُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪০) অ লাক্বদ্ আতাও ‘আলাল্ র্ক্বইয়াতিল্লাতী য় উম্ত্বিরত্ মাত্বোয়ারস্ সাওয়ি; আফালাম্ ইয়াকূনূ ইয়ারওনাহা-বাল্ কা-নূ লা-ইর্য়াজুনা নুশূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪০) আর অবশ্যই তারা সে জনপদ দিয়ে অতিক্রম করেছে, যাতে অকল্যাণের বৃষ্টি বর্ষিত হয়েছিল। তবে কি তারা তা দেখেনি? বরং তারা পুনরুত্থানের প্রত্যাশা করত না।


وَإِذَا رَأَوۡكَ إِن يَتَّخِذُونَكَ إِلَّا هُزُوًا أَهَـٰذَا ٱلَّذِى بَعَثَ ٱللَّهُ رَسُولاً 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪১) অ ইযা-রয়াওকা ইঁ ইয়াত্তাখিযূনাকা ইল্লা-হুযুওয়া-; আহা-যাল্লাযী বা‘আছাল্লা-হু রসূলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪১) আর তারা যখন তোমাকে দেখে, তখন তারা তোমাকে ঠাট্টা-বিদ্রƒপের পাত্র হিসেবেই গ্রহণ করে, ‘এ-ই কি সেই লোক, যাকে আল্লাহ রাসূল করে পাঠিয়েছেন’?


إِن ڪَادَ لَيُضِلُّنَا عَنۡ ءَالِهَتِنَا لَوۡلَآ أَن صَبَرۡنَا عَلَيۡهَا‌ۚ وَسَوۡفَ يَعۡلَمُونَ حِينَ يَرَوۡنَ ٱلۡعَذَابَ مَنۡ أَضَلُّ سَبِيلاً 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪২) ইন্ কা-দা লাইয়ুদ্বিল্লুনা-‘আন্ আ-লিহাতিনা-লাওলা য় আন্ ছোয়ার্বানা-‘আলাইহা-;অসাওফা ইয়া’লামূনা হীনা ইয়ারওনাল্ ‘আযা-বা মান্ আদ্বোয়াল্লু সাবীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪২) ‘সেতো আমাদেরকে আমাদের দেবতাদের থেকে দূরে সরিয়ে দিত, যদি আমরা তাদের প্রতি অবিচল না থাকতাম’। আর যখন তারা আযাব দেখবে, তখন অবশ্যই জানতে পারবে কে অধিক পথভ্রষ্ট।


أَرَءَيۡتَ مَنِ ٱتَّخَذَ إِلَـٰهَهُ ۥ هَوَٮٰهُ أَفَأَنتَ تَكُونُ عَلَيۡهِ وَڪِيلاً 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪৩) আরয়াইতা মানিত্ তাখযা ইলা-হাহূ হাওয়া-হ্; আফাআন্তা তাকূনু ‘আলাইহি অকীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪৩) তুমি কি তাকে দেখনি, যে তার প্রবৃত্তিকে নিজের ইলাহরূপে গ্রহণ করেছে? তবুও কি তুমি তার যিম্মাদার হবে?


أَمۡ تَحۡسَبُ أَنَّ أَڪۡثَرَهُمۡ يَسۡمَعُونَ أَوۡ يَعۡقِلُونَ‌ۚ إِنۡ هُمۡ إِلَّا كَٱلۡأَنۡعَـٰمِ‌ۖ بَلۡ هُمۡ أَضَلُّ سَبِيلاً 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪৪) আম্ তাহ্সাবু আন্না আক্ছারহুম্ ইয়াস্মা‘ঊনা আও ইয়া’ক্বিলূন্; ইন্ হুম্ ইল্লা-কাল্ আন্‘আ-মি বাল্ হুম্ আদ্বোয়াল্লু সাবীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪৪) তুমি কি মনে কর যে, তাদের অধিকাংশ লোক শোনে অথবা বুঝে? তারা কেবল পশুদের মতো; বরং তারা আরো অধিক পথভ্রষ্ট।


أَلَمۡ تَرَ إِلَىٰ رَبِّكَ كَيۡفَ مَدَّ ٱلظِّلَّ وَلَوۡ شَآءَ لَجَعَلَهُ ۥ سَاكِنً۬ا ثُمَّ جَعَلۡنَا ٱلشَّمۡسَ عَلَيۡهِ دَلِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪৫) আলাম্ তারা ইলা-রব্বিকা কাইফা মাদ্দাজ্ জিল্লা অলাও শা-য়া লাজ্বা‘আলাহূ সা-কিনান্ ছুম্মা জ্বা‘আল্নাশ্ শাম্সা ‘আলাইহি দালীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪৫) তুমি কি তোমার রবকে দেখনি, কীভাবে তিনি ছায়াকে দীর্ঘ করেছেন, আর তিনি যদি চাইতেন, তাহলে তাকে অবশ্যই স্থির করে দিতে পারতেন। অতঃপর আমি সূর্যকে তার উপর নির্দেশক বানিয়ে দিয়েছি।


ثُمَّ قَبَضۡنَـٰهُ إِلَيۡنَا قَبۡضً۬ا يَسِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪৬) ছুম্মা ক্ববাদ্ব্না-হু ইলাইনা-ক্বব্দ্বোয়াইঁ ইয়াসীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪৬) তারপর আমি এটাকে ধীরে ধীরে আমার দিকে গুটিয়ে আনি।


وَهُوَ ٱلَّذِى جَعَلَ لَكُمُ ٱلَّيۡلَ لِبَاسً۬ا وَٱلنَّوۡمَ سُبَاتً۬ا وَجَعَلَ ٱلنَّہَارَ نُشُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪৭) অ হুওয়া ল্লাযী জ্বা‘আলা লাকুমুল্লাইলা লিবা-সাঁও অন্নাওমা সুবা-তাঁও অজ্বা‘আলান্ নাহা-র নুশূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪৭) আর তিনিই তোমাদের জন্য রাতকে আবরণ ও নিদ্রাকে আরামপ্রদ করেছেন এবং দিনকে করেছেন জাগ্রত থাকার সময়।


وَهُوَ ٱلَّذِىٓ أَرۡسَلَ ٱلرِّيَـٰحَ بُشۡرَۢا بَيۡنَ يَدَىۡ رَحۡمَتِهِۦ‌ۚ وَأَنزَلۡنَا مِنَ ٱلسَّمَآءِ مَآءً۬ طَهُورً۬ا

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪৮) অ হুওয়া ল্লাযী য় আরসার্লা রিয়া-হা বুশ্রম্ বাইনা ইয়াদাই রহ্মাতিহী অ আন্যাল্না-মিনাস্ সামা-য়ি মা-য়ান্ ত্বোয়াহূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪৮) আর তিনিই তাঁর রহমতের প্রাক্কালে সুসংবাদস্বরূপ বায়ু পাঠিয়েছেন এবং আমি আকাশ থেকে পবিত্র পানি বর্ষণ করেছি,


لِّنُحۡـِۧىَ بِهِۦ بَلۡدَةً۬ مَّيۡتً۬ا وَنُسۡقِيَهُ ۥ مِمَّا خَلَقۡنَآ أَنۡعَـٰمً۬ا وَأَنَاسِىَّ ڪَثِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৪৯) লিনুহ্য়িইয়া বিহী বাল্দাতাম্ মাইতাঁও অ নুস্ক্বিয়াহূ মিম্মা-খালাক্বনা য় আন্‘আ মাঁও অ আনা-সিয়্যা কাছীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৪৯) যাতে তা দ্বারা মৃত ভূ-খণ্ডকে জীবিত করি এবং আমি যে সকল জীবজন্তু ও মানুষ সৃষ্টি করেছি, তার মধ্য থেকে অনেককে তা পান করাই।


وَلَقَدۡ صَرَّفۡنَـٰهُ بَيۡنَہُمۡ لِيَذَّكَّرُواْ فَأَبَىٰٓ أَڪۡثَرُ ٱلنَّاسِ إِلَّا ڪُفُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫০) অ লাক্বাদ্ ছোর্য়ারাফ্না-হু বাইনাহুম্ লিইয়ায্যাক্কারূ ফাআবা য় আক্ছারুন্না-সি ইল্লা-কুফূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫০) আর আমি তা তাদের মধ্যে বণ্টন করি, যাতে তারা উপদেশ গ্রহণ করতে পারে; তারপর অধিকাংশ লোক শুধু অকৃতজ্ঞতাই প্রকাশ করে।


وَلَوۡ شِئۡنَا لَبَعَثۡنَا فِى ڪُلِّ قَرۡيَةٍ۬ نَّذِيرً۬ا

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫১) অলাও শিনা-লাবা‘আছ্না- ফী কুল্লি র্ক্বইয়াতিন নাযীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫১) আর আমি ইচ্ছা করলে প্রতিটি জনপদে একজন সতর্ককারী পাঠাতাম।


فَلَا تُطِعِ ٱلۡڪَـٰفِرِينَ وَجَـٰهِدۡهُم بِهِۦ جِهَادً۬ا ڪَبِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫২) ফালা-তুত্বি‘ইল্ কা-ফিরীনা অজ্বা-হিদ্হুম বিহী জ্বিহা-দান্ কাবীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫২) সুতরাং তুমি কাফিরদের আনুগত্য করো না এবং তুমি কুরআনের সাহায্যে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সংগ্রাম কর।


۞ وَهُوَ ٱلَّذِى مَرَجَ ٱلۡبَحۡرَيۡنِ هَـٰذَا عَذۡبٌ۬ فُرَاتٌ۬ وَهَـٰذَا مِلۡحٌ أُجَاجٌ۬ وَجَعَلَ بَيۡنَہُمَا بَرۡزَخً۬ا وَحِجۡرً۬ا مَّحۡجُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫৩) অ হুওয়াল্লাযী মারাজ্বাল্ বাহ্রাইনি হা-যা- ‘আয্বুন্ ফুর-তুঁও অহা-যা-মিল্হুন্ উজ্বা-জুন্; অজ্বা‘আলা- বাইনাহুমা-র্বাযাখাঁও অহিজরম্ মাহ্জুর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫৩) আর তিনিই দু’টো সাগরকে একসাথে প্রবাহিত করেছেন। একটি সুপেয় সুস্বাদু, অপরটি লবণাক্ত ক্ষারবিশিষ্ট এবং তিনি এতদোভয়ের মাঝখানে একটি অন্তরায় ও একটি অনতিক্রম্য সীমানা স্থাপন করেছেন।


وَهُوَ ٱلَّذِى خَلَقَ مِنَ ٱلۡمَآءِ بَشَرً۬ا فَجَعَلَهُ ۥ نَسَبً۬ا وَصِهۡرً۬ا‌ۗ وَكَانَ رَبُّكَ قَدِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫৪) অহুঅল্লাযী খলাক্ব মিনাল্ মা-য়ি বাশারন্ ফাজ্বা‘আলাহূ নাসাবাঁও অ ছিহ্র-; অ কা-না রব্বুকা ক্বদীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫৪) আর তিনিই পানি থেকে মানুষ সৃষ্টি করেছেন, অতঃপর তিনি তাকে বংশগত ও বৈবাহিক সম্পর্কযুক্ত করেছেন। আর তোমার রব হল প্রভূত ক্ষমতাবান।


وَيَعۡبُدُونَ مِن دُونِ ٱللَّهِ مَا لَا يَنفَعُهُمۡ وَلَا يَضُرُّهُمۡ‌ۗ وَكَانَ ٱلۡكَافِرُ عَلَىٰ رَبِّهِۦ ظَهِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫৫) অ ইয়া’বুদূনা মিন্ দূনিল্লা-হি মা-লা-ইয়ান্ফা‘ঊহুম্ অলা- ইয়াদ্বরুরুহুম্; অকা-নাল কা-ফিরু ‘আলা-রব্বিহী জ্বোয়াহীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫৫) আর তারা আল্লাহর পরিবর্তে এমন কিছুর ইবাদাত করে, যা তাদের কোন উপকারও করতে পারে না এবং তাদের কোন ক্ষতিও করতে পারে না। আর কাফির তো তার রবের বিরুদ্ধে সাহায্যকারী।


وَمَآ أَرۡسَلۡنَـٰكَ إِلَّا مُبَشِّرً۬ا وَنَذِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫৬) অমা য় র্আসাল্না-কা ইল্লা-মুবাশ্শিরাঁও অনাযীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫৬) আর আমি তো তোমাকে শুধুমাত্র সুংসবাদদাতা ও সতর্ককারী রূপেই প্রেরণ করেছি।


قُلۡ مَآ أَسۡـَٔلُڪُمۡ عَلَيۡهِ مِنۡ أَجۡرٍ إِلَّا مَن شَآءَ أَن يَتَّخِذَ إِلَىٰ رَبِّهِۦ سَبِيلاً۬ 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫৭) কুল্ মা য় আস্য়ালুকুম্ ‘আলাইহি মিন্ আজরিন্ ইল্লা-মান্ শা-য়া আইঁ ইয়াত্তাখিয ইলা-রব্বিহী সাবীলা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫৭) বল, ‘আমি এর উপর তোমাদের নিকট কোন প্রতিদান চাই না। তবে যার ইচ্ছা তার রবের দিকে পথ অবলম্বন করুক।


وَتَوَڪَّلۡ عَلَى ٱلۡحَىِّ ٱلَّذِى لَا يَمُوتُ وَسَبِّحۡ بِحَمۡدِهِۦ‌ۚ وَڪَفَىٰ بِهِۦ بِذُنُوبِ عِبَادِهِۦ خَبِيرًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫৮) অ তাওয়াক্কাল্ ‘আলাল্ হাইয়্যিল্লাযী লা-ইয়ামূতু অসাব্বিহ, বিহাম্দিহ্; অকাফা-বিহী বিযুনূবি ই’বাদিহী খাবীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫৮) আর তুমি ভরসা কর এমন চিরঞ্জীব সত্তার উপর যিনি মরবেন না। তাঁর প্রশংসায় তাসবীহ পাঠ কর। তাঁর বান্দাদের পাপ সম্পর্কে খবর রাখার ব্যাপারে তিনি যথেষ্ট।


ٱلَّذِى خَلَقَ ٱلسَّمَـٰوَٲتِ وَٱلۡأَرۡضَ وَمَا بَيۡنَهُمَا فِى سِتَّةِ أَيَّامٍ۬ ثُمَّ ٱسۡتَوَىٰ عَلَى ٱلۡعَرۡشِ‌ۚ ٱلرَّحۡمَـٰنُ فَسۡـَٔلۡ بِهِۦ خَبِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৫৯) নিল্লাযী খলাক্বস্ সামা-ওয়া-তি অল্র্আদ্বোয়া অমা- বাইনাহুমা- ফী সিত্তাতি আইয়্যা- মিন্ ছুম্মাস্ তাওয়া ‘আলাল্ ‘র্আশি র্আরহ্মা-নু ফাস্য়াল্ বিহী খবীর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৫৯) যিনি আসমান, যমীন ও উভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছু ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন। তারপর তিনি আরশে উঠেছেন। পরম করুণাময়। সুতরাং তাঁর সম্পর্কে যিনি সম্যক অবহিত, তুমি তাকেই জিজ্ঞাসা কর।


وَإِذَا قِيلَ لَهُمُ ٱسۡجُدُواْ لِلرَّحۡمَـٰنِ قَالُواْ وَمَا ٱلرَّحۡمَـٰنُ أَنَسۡجُدُ لِمَا تَأۡمُرُنَا وَزَادَهُمۡ نُفُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬০) অইযা ক্বীলা লাহুমুস্ জুদূ র্লিরহ্মা-নি ক্ব-লূ অর্মা রহ্মানু আনাস্জুদু লিমা-তামুরুনা-অযা-দাহুম্ নুফূর।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬০) আর যখন তাদেরকে বলা হয়, তোমরা ‘রহমান’ কে সিজদা কর, তখন তারা বলে, রহমান কী আবার? তুমি আমাদেরকে আদেশ করলেই কি আমরা সিজদা করব? আর এটা তাদের পলায়নপরতাই বৃদ্ধি করে।


تَبَارَكَ ٱلَّذِى جَعَلَ فِى ٱلسَّمَآءِ بُرُوجً۬ا وَجَعَلَ فِيہَا سِرَٲجً۬ا وَقَمَرً۬ا مُّنِيرً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬১) তাবা-রকাল্লাযী জ্বা‘আলা ফি স্ সামা-য়ি বুরূজ্বাঁও অ জ্বা‘আলা ফীহা-সিরা-জ্বাঁও অক্বমারম্ মুনীর-।

বাংলা অনুবাদ
২৫.৬১) বরকতময় সে সত্তা যিনি আসমানে সৃষ্টি করেছেন বিশালকায় গ্রহসমূহ। আর তাতে প্রদীপ ও আলো বিকিরণকারী চাঁদ সৃষ্টি করেছেন।


وَهُوَ ٱلَّذِى جَعَلَ ٱلَّيۡلَ وَٱلنَّهَارَ خِلۡفَةً۬ لِّمَنۡ أَرَادَ أَن يَذَّڪَّرَ أَوۡ أَرَادَ شُڪُورً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬২) অহুওয়াল্লাযী জ্বা‘আলাল্ লাইলা অন্নাহা-র খিল্ফাতাল্ লিমান্ আর-দা আইঁ ইয়ায্যাক্কার আও আর-দা শুকূর-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬২) আর তিনি দিবা-রাত্রিকে পরস্পরের অনুগামী করেছেন। যে উপদেশ গ্রহণ করতে চায় অথবা কৃতজ্ঞ হতে চায় তার জন্য।


وَعِبَادُ ٱلرَّحۡمَـٰنِ ٱلَّذِينَ يَمۡشُونَ عَلَى ٱلۡأَرۡضِ هَوۡنً۬ا وَإِذَا خَاطَبَهُمُ ٱلۡجَـٰهِلُونَ قَالُواْ سَلَـٰمً۬ا

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬৩) অ ই’বা-র্দু রহ্মা-নিল্ লাযীনা ইয়াম্শূনা ‘আলাল্ র্আদ্বি হাওনাঁও অইযা- খা-ত্বোয়াবাহুমুল্ জ্বা-হিলূনা ক্ব-লূ সালামা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬৩) আর রহমানের বান্দা তারাই যারা পৃথিবীতে নম্রভাবে চলাফেরা করে এবং অজ্ঞ লোকেরা যখন তাদেরকে সম্বোধন করে তখন তারা বলে ‘সালাম’।


وَٱلَّذِينَ يَبِيتُونَ لِرَبِّهِمۡ سُجَّدً۬ا وَقِيَـٰمً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬৪) অল্লাযীনা ইয়াবীতূনা লিরব্বিহিম্ সুজ্জ্বাদাঁও অক্বিয়ামা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬৪) আর যারা তাদের রবের জন্য সিজদারত ও দণ্ডায়মান হয়ে রাত্রি যাপন করে।


وَٱلَّذِينَ يَقُولُونَ رَبَّنَا ٱصۡرِفۡ عَنَّا عَذَابَ جَهَنَّمَ‌ۖ إِنَّ عَذَابَهَا كَانَ غَرَامًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬৫) অল্লাযীনা ইয়াকুলূনা রব্বানাছ্ রিফ্ ‘আন্না-‘আযা-বা জ্বাহান্নামা ইন্না ‘আযা-বাহা-কা-না গরা-মা।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬৫) আর যারা বলে, ‘হে আমাদের রব, তুমি আমাদের থেকে জাহান্নামের আযাব ফিরিয়ে নাও। নিশ্চয় এর আযাব হল অবিচ্ছিন্ন’।


إِنَّهَا سَآءَتۡ مُسۡتَقَرًّ۬ا وَمُقَامً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬৬) ইন্নাহা-সা-য়াত্ মুস্তার্ক্বরাঁও অমুক্ব-মা -।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬৬) ‘নিশ্চয় তা অবস্থানস্থল ও আবাসস্থল হিসেবে অত্যন্ত নিকৃষ্ট’।

وَٱلَّذِينَ إِذَآ أَنفَقُواْ لَمۡ يُسۡرِفُواْ وَلَمۡ يَقۡتُرُواْ وَڪَانَ بَيۡنَ ذَٲلِكَ قَوَامً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬৭) অল্লাযীনা ইযা য় ‘আন্ফাকুলাম্ ইয়ুস্রিফূ অলাম্ ইয়াক্বতুরূ অকা-না বাইনা যা-লিকা ক্বওয়া-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬৭) আর তারা যখন ব্যয় করে তখন অপব্যয় করে না এবং কার্পণ্যও করে না। বরং মাঝামাঝি অবস্থানে থাকে।

وَٱلَّذِينَ لَا يَدۡعُونَ مَعَ ٱللَّهِ إِلَـٰهًا ءَاخَرَ وَلَا يَقۡتُلُونَ ٱلنَّفۡسَ ٱلَّتِى حَرَّمَ ٱللَّهُ إِلَّا بِٱلۡحَقِّ وَلَا يَزۡنُونَ‌zwnj;ۚ وَمَن يَفۡعَلۡ ذَٲلِكَ يَلۡقَ أَثَامً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬৮) অল্লাযীনা লা-ইয়াদ্ ‘ঊনা মা‘আল্লা-হি ইলা-হান্ আ-খর অলা-ইয়াক্বতুলূ নান্ নাফ্সাল্লাতী র্হারমাল্লা-হু ইল্লা-বিল্হাক্বক্বি অলা-ইয়ায্নূনা অমাই ইঁয়াফ্আল্ যা-লিকা ইয়াল্ক্ব আছা-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬৮) আর যারা আল্লাহর সাথে অন্য ইলাহকে ডাকে না এবং যারা আল্লাহ যে নাফ্সকে হত্যা করা নিষেধ করেছেন যথার্থ কারণ ছাড়া তাকে হত্যা করে না। আর যারা ব্যভিচার করে না। আর যে তা করবে সে আযাবপ্রাপ্ত হবে।


يُضَـٰعَفۡ لَهُ ٱلۡعَذَابُ يَوۡمَ ٱلۡقِيَـٰمَةِ وَيَخۡلُدۡ فِيهِۦ مُهَانًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৬৯) ইয়ুদ্বোয়া‘আফ্ লাহুল্ ‘আযা-বু ইয়াওমাল্ ক্বিয়া-মাতি অইয়াখ্লুদ্ ফীহি মুহা-না-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৬৯) কিয়ামতের দিন তার আযাব বর্ধিত করা হবে এবং সেখানে সে অপমানিত অবস্থায় স্থায়ী হবে।


إِلَّا مَن تَابَ وَءَامَنَ وَعَمِلَ عَمَلاً۬ صَـٰلِحً۬ا فَأُوْلَـٰٓٮِٕكَ يُبَدِّلُ ٱللَّهُ سَيِّـَٔاتِهِمۡ حَسَنَـٰتٍ۬‌ۗ وَكَانَ ٱللَّهُ غَفُورً۬ا رَّحِيمً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭০) ইল্লা-মান্ তা-বা অ আ-মানা অ ‘আমিলা আমাল্সান্ ছোয়া-লিহান্ ফাউলা-য়িকা ইয়ুবাদ্দিলুল্লা-হু সাইয়িয়া-তিহিম্ হাসানা-ত্; অকা-নাল্লা-হু গফূর্র রহীমা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭০) তবে যে তাওবা করে, ঈমান আনে এবং সৎকর্ম করে। পরিণামে আল্লাহ তাদের পাপগুলোকে পূণ্য দ্বারা পরিবর্তন করে দেবেন। আল্লাহ অতীব ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।


وَمَن تَابَ وَعَمِلَ صَـٰلِحً۬ا فَإِنَّهُ ۥ يَتُوبُ إِلَى ٱللَّهِ مَتَابً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭১) অ মান্ তা-বা অ‘আমিলা ছোয়া-লিহান্ ফাইন্নাহূ ইয়াতূবু ইলাল্লা-হি মাতা-বা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭১) আর যে তাওবা করে এবং সৎকাজ করে তবে নিশ্চয় সে পরিপূর্ণভাবে আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন করে।

وَٱلَّذِينَ لَا يَشۡهَدُونَ ٱلزُّورَ وَإِذَا مَرُّواْ بِٱللَّغۡوِ مَرُّواْ ڪِرَامً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭২) অল্লাযীনা লা-ইয়াশ্হাদূনায্ যূরা অইযা-র্মারূ বিল্লাগ্ওয়ি র্মারূ কির-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭২) আর যারা মিথ্যার সাক্ষ্য হয় না এবং যখন তারা অনর্থক কথা-কর্মের পাশ দিয়ে চলে তখন সসম্মানে চলে যায়।

وَٱلَّذِينَ إِذَا ذُڪِّرُواْ بِـَٔايَـٰتِ رَبِّهِمۡ لَمۡ يَخِرُّواْ عَلَيۡهَا صُمًّ۬ا وَعُمۡيَانً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭৩) অল্লাযীনা ইযা- যুক্কিরূ বিআ-ইয়া-তি রব্বিহিম লাম ইয়ার্খিরূ ‘আলাইহা- ছুম্মাঁও অ ‘ঊম্ইয়া-না।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭৩) আর যারা তাদের রবের আয়াতসমূহ স্মরণ করিয়ে দিলে অন্ধ ও বধিরদের মত পড়ে থাকে না।


وَٱلَّذِينَ يَقُولُونَ رَبَّنَا هَبۡ لَنَا مِنۡ أَزۡوَٲجِنَا وَذُرِّيَّـٰتِنَا قُرَّةَ أَعۡيُنٍ۬ وَٱجۡعَلۡنَا لِلۡمُتَّقِينَ إِمَامًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭৪) অল্লাযীনা ইয়াকুলূনা রব্বানা-হাব্লানা-মিন্ আয্ওয়া-জ্বিনা-অ র্যুরিয়্যা-তিনা-ক্বর্ ুরতা আ’ইয়ুনিঁও অজ্ব্‘আল্না-লিল্মুত্তাকীনা ইমা-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭৪) আর যারা বলে, ‘হে আমাদের রব, আপনি আমাদেরকে এমন স্ত্রী ও সন্তানাদি দান করুন যারা আমাদের চক্ষু শীতল করবে। আর আপনি আমাদেরকে মুত্তাকীদের নেতা বানিয়ে দিন’।

أُوْلَـٰٓٮِٕكَ يُجۡزَوۡنَ ٱلۡغُرۡفَةَ بِمَا صَبَرُواْ وَيُلَقَّوۡنَ فِيهَا تَحِيَّةً۬ وَسَلَـٰمًا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭৫) উলা-য়িকা ইয়ুজযাওনাল্ র্গুফাতা বিমা-ছোয়াবারূ অইয়ুলাক্বক্বওনা ফীহা-তাহিয়্যাতাঁও অসালা-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭৫) তারাই, যাদেরকে [জান্নাতে] সুউচ্চ কক্ষ প্রতিদান হিসাবে দেয়া হবে যেহেতু তারা সবর করেছিল সেজন্য। আর তাদের সেখানে অভ্যর্থনা করা হবে অভিবাদন ও সালাম দ্বারা।


خَـٰلِدِينَ فِيهَا‌ۚ حَسُنَتۡ مُسۡتَقَرًّ۬ا وَمُقَامً۬ا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭৬) খ-লিদীনা ফীহা-; হাসুনাত্ মুস্তার্ক্বরঁও অমুক্ব-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭৬) সেখানে তারা স্থায়ী হবে। অবস্থানস্থল ও আবাসস্থল হিসেবে তা কতইনা উৎকৃষ্ট!


قُلۡ مَا يَعۡبَؤُاْ بِكُمۡ رَبِّى لَوۡلَا دُعَآؤُڪُمۡ‌ۖ فَقَدۡ كَذَّبۡتُمۡ فَسَوۡفَ يَڪُونُ لِزَامَۢا 

আরবি উচ্চারণ

২৫.৭৭) কুল্ মা- ইয়া’বায়ু বিকুম্ রব্বি লাওলা-দু‘আ-য়ুকুম্ ফাক্বদ্ কায্যাব্তুম্ ফাসাওফা ইয়াকূনু লিযা-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭৭) বল, ‘যদি তোমরা না-ই ডাক তাহলে আমার রব তোমাদের কোন পরওয়া করেন না। তারপর তোমরা অস্বীকার করেছ। তাই অচিরেই অপরিহার্য হবে আযাব।

সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ এর ফজিলত 


সূরা ফুরকান এর ৭৪ নং আয়াতে মহান আল্লাহ্পাক বলেন:-


وَالَّذِينَ يَقُولُونَ رَبَّنَا هَبْ لَنَا مِنْ أَزْوَاجِنَا وَذُرِّيَّاتِنَا قُرَّةَ أَعْيُنٍ وَاجْعَلْنَا لِلْمُتَّقِينَ إِمَامًا‎


এবং যারা বলে (“হে আমাদের পালনকর্তাʼʼ) আমাদের স্ত্রীদের পক্ষ থেকে এবং আমাদের সন্তানের পক্ষ থেকে আমাদের জন্যে চোখের শীতলতা দান কর এবং আমাদেরকে মুত্তাকীদের জন্যে আদর্শস্বরূপ কর।
অনেক উলামায়ে কেরাম এই আয়াতের “ফজিলতʼʼ স্বরুপ বলেছেন  যে এই আয়াতে রাব্বুল আলামিন আমাদের জন্য “গুরুত্বপূর্ণʼʼ একটি দোয়া শিখিয়েছেন।

এই দোয়া টি নিয়মিত পাঠ করলে আশা করা যায় যে নিজের স্ত্রী,সন্তানাদী চক্ষু শীতলকারি, দ্বীনদার পরহেযগার হবে, “ইনশাআল্লাহʼʼ। 

যারা মহান আল্লাহর কাছে উত্তম “জীবনসঙ্গীʼʼ লাভের প্রত্যাশা করে, তাদের উচিত মহান “আল্লাহরʼʼ কাছে তারই শেখানো ভাষায় আবেদন করা। আল্লাহ তাআলা পবিত্র “কুরআনুলʼʼ কারিমে বান্দাকে উত্তম (স্বামী/স্ত্রী) ও সন্তান লাভের দোয়া শিখিয়েছেন। যেসব (স্বামী/স্ত্রী) ও সন্তান একে অন্যের চোখকে শীতল করবে। কুরআনুল কারিমের এ আয়াতের আমলে আল্লাহ তাআলা প্রত্যেক পুরুষকেই এমন (“উত্তম স্ত্রী ও সন্তানʼʼ) দান করবেন, যাদের দেখে পুরুষদের মন শান্ত হয়ে যাবে।

“পক্ষান্তরে যে সব নারী এ দোয়ার আমল করবে, আশা করা যায়, আল্লাহ তাআলা সেসব স্ত্রীদেরকেও নয়নজুড়ানো স্বামী ও সন্তান দান করবেন।ʼʼ

সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪ |সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪ বাংলা উচ্চারণ   


وَٱلَّذِينَ يَقُولُونَ رَبَّنَا هَبۡ لَنَا مِنۡ أَزۡوَٲجِنَا وَذُرِّيَّـٰتِنَا قُرَّةَ أَعۡيُنٍ۬ وَٱجۡعَلۡنَا لِلۡمُتَّقِينَ إِمَامًا 


আরবি উচ্চারণ

২৫.৭৪) অল্লাযীনা ইয়াকুলূনা রব্বানা-হাব্লানা-মিন্ আয্ওয়া-জ্বিনা-অ র্যুরিয়্যা-তিনা-ক্বর্ ুরতা আ’ইয়ুনিঁও অজ্ব্‘আল্না-লিল্মুত্তাকীনা ইমা-মা-।

বাংলা অনুবাদ

২৫.৭৪) আর যারা বলে, ‘হে আমাদের রব, আপনি আমাদেরকে এমন স্ত্রী ও সন্তানাদি দান করুন যারা আমাদের চক্ষু শীতল করবে। আর আপনি আমাদেরকে মুত্তাকীদের নেতা বানিয়ে দিন’।




Tag: সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪, সুরা ফুরকান আয়াত ৭৪ বাংলা উচ্চারণ, সূরা ফুরকান, সূরা ফুরকান বাংলা অনুবাদ, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ এর ফজিলত, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪ বাংলা উচ্চারণ, সূরা ফুরকান আয়াত ৭৪।

0/Post a Comment/Comments

chrome-extension://oilhmgfpengfpkkliokdbjjhiikehfoo/img/semstorm-32.png