লালনগীতি লিরিক্স | Lalon Geeti lyrics

লালনগীতি লিরিক্স  | Lalon Geeti lyrics



    লালনগীতি লিরিক্স  

    পাঠক বৃন্দ আপনাদের সবাইকে জানাই আসসালামু আলাইকুম রাহমাতুল্লাহে বারাকাতুহু । আপনারা সবাই কেমন আছেন? আশা করি অনেক ভাল আছেন । আলহামদুলিল্লাহ আমরা অনেক ভালো আছি । আজকে আমরা আপনাদের মাঝে লালনগীতি লিরিক্স | Lalon Geeti lyricsগানটি শেয়ার করব । গান শোনা সম্পপূর্ণ

    হারাম। কিন্তু, আমাদের কাছে ইদানিং অনেক রিকোয়েস্ট আসছে গান নিয়ে পোস্ট করার জন্য।


    সেজন্যই আমরা আপনাদের কথা বিবেচনা করে। আমাদের গ্রুপ Time of BD গানের lyrics শেয়ার করছি।





    গান বাদ্যযন্ত্রের সাথে বাজানো বা গাওয়া ইসলামে হারাম। আপনাদের পরামর্শ দেবো গান না শুনে ইসলামিক গজল শুনবেন ,ইসলামিক গজল গাইবেন, ইসলামিক ও্যাজ শুনবেন, এতে সও্যাব হবে পাপ হবেনা। তারপরেও যদি আপনাদের ইচ্ছে হয় গানের লিরিক্স নিয়ে গান গাইবেন তবে বলে রাখি, কোন রকম পাপ হলে আমরা টাইম অফ বিডি পরিবারের কোন এডমিন দায়বদ্ধ হবো না। আমরা আপনাদের সব সময় ভালো কাজের আদেশ করতে চাই আর খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকবেন পরামর্শ দিতে চাই। আশা করি আপনারা যা সিদ্ধান্ত নিবেন নিজেদের উপর সেই টার ফলাফল হবে।ধন্যবাদ


    Lalon Geeti lyrics


    **সব লোকে কয় লালন কী জাত সংসারে



    সব লোকে কয় লালন কী জাত সংসারে ।।
    লালন কয় জাতের কী রূপ
    আমি দেখলাম না দুই নজরে।
    সব লোকে কয় লালন কী জাত সংসারে ।।
    কেউ মালা’য় কেউ তছবি গলায়,
    তাইতে যে জাত ভিন্ন বলায়
    যাওয়া কিম্বা আসার বেলায়
    জাতের চিহ্ন রয় কার রে
    সব লোকে কয় লালন কী জাত সংসারে ।।
    যদি ছুন্নত দিলে হয় মুসলমান,
    নারীর তবে কি হয় বিধান,
    বামণ চিনি পৈতা প্রমাণ,
    বামণি চিনে কিসে রে
    সব লোকে কয় লালন কী জাত সংসারে ।।

    জগত্ বেড়ে জেতের কথা,
    লোকে গৌরব করে যথা তথা
    লালন সে জেতের ফাতা ঘুচিয়াছে সাধ বাজারে’
    সব লোকে কয় লালন কী জাত সংসারে ।।



    **কৃষ্ণ প্রেমে পোড়া দেহ কি দিয়ে জুড়াই বলো সখি?





    কৃষ্ণ প্রেমে পোড়া দেহ কি দিয়ে জুড়াই বলো সখি?
    কে বুঝবে অন্তরের ব্যথা কে মোছাবে আঁখি?
    যে দেশেতে আছে আমার বন্ধু চাঁদ কালা,
    সে দেশেতে যাব নিয়ে ফুলের মালা।
    নগর গাঁয়ে ঘুরবো আমি যোগিনী বেশ ধরি।
    তোমরা যদি দেখে থাকো খবর দিও তারে,
    নইলে আমি প্রাণ ত্যাজিব যমুনারই নীরে,
    কালা আমায় করে গেল অসহায় একাকী।
    কালাচাঁদকে হারাইয়ে হইলাম যোগিনী,
    কত দিবা নিশি গেল কেমনে জুড়াই প্রাণী?
    লালন বলে, যুগল চরণ আমার ভাগ্যে হবে কি?


    * আর আমারে মারিস নে মা


    বলি মা তোর চরণ ধরে
    ননী চুরি-ই আর করব না
    আর আমারে মারিস নে মা
    ননীর জন্যে আজ আমারে
    মারলি মাগো বেধে ধরে
    দয়া নাই মা তোর অন্তরে…এ..
    সাল পেতেই গেল জ্বালা
    পরে মারে পরের ছেলে
    কেদে যেয়ে মাকে বলে
    সেই মা জননী নিষ্ঠুর হলে..এ .এ.
    কে বোঝে শিশুর বেদনা
    আর আমারে মারিস নে মা
    ছেড়ে দে মা হাতের বাধন
    যাই যে দিকে যায় দুই নয়ন
    পরের মাকে ডাকবে লালন
    তোর গৃহে আর থাকবে না মাগো
    তোর গৃহে আর থাকবে না
    আর আমারে মারিস নে মা
    বলি মা তোর চরণ ধরে
    ননী চুরি-ই আর করব না
    মাগো ননী চুরি-ই আর করব না
    আর আমারে মারিস নে মা



    * বাড়ির কাছে আরশী নগর


    বাড়ির কাছে আরশী নগর

    (একঘর) সেথা পড়শী বসত করে-

    আমি একদিনও না দেখিলাম তারে।।

    গেরাম বেড়ে অগাধ পানি

    নাই কিনারা নাই তরণী পারে,

    বাঞ্ছা করি দেখব তারে

    (আমি) কেমনে সেথা যাই রে।।

    কি বলব পড়শীর কথা,

    হস্ত পদ স্কন্ধ মাথা নাই-রে

    ক্ষণেক থাকে শূণ্যের উপর

    (ওসে) ক্ষণেক ভাসে নীরে।।

    পড়শী যদি আমায় ছুঁতো,

    যম যাতনা সকল যেতো দূরে।

    সে আর লালন একখানে রয়-

    (তবু) লক্ষ যোজন ফাঁক রে।



    * খাঁচার ভিতর অচিন পাখি




    খাঁচার ভিতর অচিন পাখি

    কেমনে আসে যায়

    তারে ধরতে পারলে মন বেড়ি

    দিতাম পাখির পায়ে।

    আট কুঠুরী নয়

    দরজা আটা মধ্যে মধ্যে

    ঝরকা কাঁটা

    তার উপরে সদর কোঠা

    আয়না মহল তায়ে।

    কপালের ফের নইলে কি আর

    পাখিটির এমন ব্যবহার

    খাঁচা ভেঙ্গে পাখিয়ামার কোন খানে পালায়।

    মন তুই রইলি খাঁচার আসে

    খাঁচা যে তোর কাঁচা বাঁশের

    কোন দিন খাঁচা পড়বে খসে

    ফকির লালন কেঁদে কয়।


    * আমি অপার হয়ে বসে আছি



    আমি অপার হয়ে বসে আছি

    ও হে দয়াময়,

    পারে লয়ে যাও আমায়।।

    আমি একা রইলাম ঘাটে

    ভানু সে বসিল পাটে-

    (আমি) তোমা বিনে ঘোর সংকটে

    না দেখি উপায়।।

    নাই আমার ভজন-সাধন

    চিরদিন কুপথে গমন-

    নাম শুনেছি পতিত-পাবন

    তাইতে দিই দোহাই।।

    অগতির না দিলে গতি

    ঐ নামে রবে অখ্যাতি-

    লালন কয়, অকুলের পতি

    কে বলবে তোমায়।।


    * মিলন হবে কত দিনে


    মিলন হবে কত দিনে

    আমার মনের মানুষের সনে।।

    চাতক প্রায় অহর্নিশি

    চেয়ে আছি কালো শশী

    হব বলে চরণ-দাসী,

    ও তা হয় না কপাল-গুণে।।

    মেঘের বিদ্যুৎ মেঘেই যেমন

    লুকালে না পাই অন্বেষণ,

    কালারে হারায়ে তেমন

    ঐ রূপ হেরি এ দর্পণে।।

    যখন ও-রূপ স্মরণ হয়,

    থাকে না লোক-লজ্জার ভয়-

    লালন ফকির ভেবে বলে সদাই

    (ঐ) প্রেম যে করে সে জানে।।


    Tag: মিলন হবে কত দিনে

    0/Post a Comment/Comments

    Previous Post Next Post
    chrome-extension://oilhmgfpengfpkkliokdbjjhiikehfoo/img/semstorm-32.png